ভুয়া আইডি চালাচ্ছে

মৌসুমী

ভুয়া আইডি চালাচ্ছে
মৌসুমী


আমার নামে ভুয়া আইডি চালাচ্ছে


বর্তমান সময়ে করোনা মহামারি পেরিয়ে মানুষ আবার ফিরবে স্বাভাবিক জীবনে। শুটিং স্পটগুলো হয়ে উঠবে মুখর। নতুন সিনেমা আসবে, সেসব সিনেমা হাসি ফোটাবে মানুষের মুখে। করোনা–পরবর্তী সময়ের সিনেমা ও জীবন নিয়ে বলছিলেন মৌসুমী। জানালেন কেমন কাটছে তাঁর ঘরবন্দী জীবন।

লকডাউন পরিস্থিতিতে সবাই ঘরবন্দী। কেমনভাবে কাটছে এই সময়টা?


এটা অবসরের সময় নয়। কেউ অবশ্য মনেও করছে না এখন অবসর বা ছুটি চলছে। লকডাউনের প্রথম কয়েকটা দিন একভাবে কেটেছে, মাস পেরোনোর পর চিন্তাভাবনা বদলে গেছে কিন্তু। সবার মধ্যে একটাই চিন্তা, কবে ফিরে পাবে স্বাভাবিক জীবন। ছেলে-মেয়ে, স্বামীসহ সবাইকে নিয়ে কেটে যাচ্ছে। একটা পরিবারে অনেক ধরনের কাজ, সময় যে কখন কেটে যায় টেরই পাই না।

ভুয়া আইডি চালাচ্ছে
সুন্দরী মৌসুমী

লকডাউন পরিস্থিতি কেটে গেলেও চলচ্চিত্র স্বাভাবিক অবস্থায় আসতে সময় লাগবে কি?


এখন কিন্তু সবাই জমা থেকে খরচ করছেন। লকডাউন উঠে গেলে তাই শুরুতে প্রতিটা মানুষের চিন্তা থাকবে আয়ের চাকা সচল করা। সবাই আবার দৌড়াবে। মানুষ বেসিক চাহিদা মেটাতে বেশি ব্যস্ত থাকবে। শুরুতে সিনেমা নিয়ে ভাবার সময় খুব একটা থাকবে না। পরিস্থিতি পুরোপুরি স্বাভাবিক হলে মানুষ তখন সিনেমা নিয়ে ভাববে। তবে সামাজিক দূরত্বের বিষয়টি ঠিক না হলে ছবির শুটিং নিয়েও বিপাকে পড়তে হবে। এটা ঠিক যে লকডাউন পরিস্থিতিতে আমরা উপলব্ধি করেছি, সুস্থ বিনোদন দরকার। তাই বিনোদনের বড় মাধ্যম চলচ্চিত্র নিয়ে ভালোভাবে ভাবার দরকার আছে।

বিনোদন যে অত্যন্ত জরুরি একটা ব্যাপার, সেটা এখন আরও ভালোভাবে বোঝা যাচ্ছে, তা–ই না?


প্রয়োজনীয় কাজকর্মের পর বাকি সময়টা মানুষ বিনোদনের মধ্য দিয়েই কাটাচ্ছে। একমাত্র সুস্থ বিনোদনই পারে মানুষকে নানা রকম বাজে চিন্তা থেকে দূরে রাখতে। আমি তো গভীরভাবে ভাবলাম, আজ এসব যদি না থাকত, কী যে হতো! টিভি খুললেই দেখি হয় আমাদের সিনেমা, না হয় কোনো সিরিয়াল। সংবাদের চ্যানেলগুলো করোনা করোনা আর করোনা—এসব নিয়েই ব্যস্ত। দর্শকদের সুস্থ বিনোদন উপহার দিতে করোনার পর আমাদের সবাইকে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে হবে। একসঙ্গে এই লড়াইয়ে সরকারকেও সহযোগিতার হাত বাড়াতে হবে।

সরকার তো চলচ্চিত্র বানানোর জন্য অনুদান দিয়েই থাকে?


অনুদান তো সব সময়ই দেয়। কিন্তু এই সংকট সময়ে কিছু প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানকে আর্থিক প্রণোদনা দিতে হবে। সেসব প্রতিষ্ঠানকে দিতে হবে, যারা গত এক-দুই বছরে চলচ্চিত্রে সবচেয়ে সক্রিয় ছিল। বেশি ছবি বানিয়ে যাচ্ছিল। একই সঙ্গে যাদের ছবির শুটিং মাঝপথে বন্ধ হয়ে গেছে, ক্ষতির মধ্যে পড়েছে, তাদের বিষয়েও ভাবতে হবে। আমি মনে করি, প্রথম এক বছর তো অবশ্যই, আর যদি দুই বছর হয়, তাহলে আরও ভালো। কমপক্ষে মাসে দুটি করে হলেও বছরে এফডিসি ঘরানার ২৪ সিনেমার পেছনে সরকারকে বিনিয়োগ করতে হবে, যা আসলে সরকারের জন্য কিছুই না। তবে এসব সিনেমার আয় নিশ্চিত করতেও হবে। যাঁদের দ্বারা ব্যবসা হবে এবং যাঁরা এই সময়টায় সক্রিয়, তাঁরাই যেন এই প্রণোদনা পান। প্রণোদনা শিল্পের ক্ষয়ক্ষতির কথা চিন্তা করে সঠিক তথ্য–উপাত্ত দেখে ক্ষতিগ্রস্ত প্রযোজক ও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানকে দিতে হবে।


গবেষকেরা বলছেন, লকডাউনের পরও বছর দুয়েক সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। তাহলে শুটিং কীভাবে হবে?


সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে গিয়ে ছবি তৈরির ক্ষেত্রে একটা ঝামেলা হতেই পারে। একটা ছবির শুটিংয়ে কমপক্ষে ৫০ জন থেকে শুরু করে দেড় শ–দুই শ জনও মানুষ থাকেন। শুটিংয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা মুশকিল। নায়ক-নায়িকার রোমান্টিক দৃশ্যে অভিনয় করাটাও কষ্ট হবে। ভ্যাকসিন না আসা পর্যন্ত করতে শুটিং করাটা কষ্টসাধ্য হবে। আবার শুটিং যদিও করা হয়, ছবিটি দেখানোর জন্য বিকল্প কিছু ভাবতে হবে।


অপরূপা মৌসুমী

তার মানে প্রেক্ষাগৃহও ভীষণ ক্ষতির মধ্যে আছে।


অবশ্যই। প্রেক্ষাগৃহে একটা সিটের সঙ্গে আরেকটা লাগোয়া। বিকল্প উপায়ে সিনেমা দেখানোর কথা এখন আমাদের জোরেশোরে ভাবতে হবে। বিভিন্ন ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মকে শক্তিশালী করতে হবে। কারণ, দর্শক প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে ছবি না দেখলেও ঘরে বসে কিন্তু দেখছেন। ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম হবে প্রধান আয়ের উৎস। ধরন বদলে যাবে। তারপরও বড় পর্দায় দেখার চাহিদা থাকবে। আর পৃথিবী তো থেমে থাকবে না, কোনো না কোনো উপায় বের হবেই।


আপনার স্বামী জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ওমর সানীর ফেসবুক পোস্ট ও লাইভ নিয়ে প্রায়ই আলোচনা হয়। এসব কি আপনার কানে আসে?


সানীকে নিয়ে মানুষ অকারণে কথা বলে। ফেসবুক ব্যবহারকারী বেশির ভাগের কাজ নেই, আলোচনা-সমালোচনার জন্য ফেসবুকে অকারণে কথা বলতে পছন্দ করে। একটা সহজ স্বাভাবিক বিষয়কে অস্বাভাবিক করে তোলে। নিজেদের আলোচনায় আনতে অন্যকে নিয়ে সমালোচনায় মেতে ওঠে। সত্যি কথা বলতে, সানী অনেক বেশি সরলমনা মানুষ। ও কখনো ডিপ্লোমেটিক হতে শেখেনি। এটাও ঠিক, কাউকে ছোট করার জন্য কখনোই কিছু লেখে না কিংবা বলেও না।


মানুষ যে অকারণে এই আলোচনা বা সমালোচনা করে কষ্ট লাগে না।

সবার কাছে নায়ক হলেও সে তো আমার স্বামী। স্বামীকে কিছু বললে কষ্ট লাগাটাই স্বাভাবিক। যারা সমালোচনা করছে, তারা কিন্তু বক্তব্যকে ভুলভাবে তুলে ধরেই এমনটা করে থাকে। আমি মনে করি, সবার বোধের জায়গায় পরিবর্তন আসবে।

মৌসুমী ও ওমর সানী


এদিকে শোনা যাচ্ছে, এই করোনার সময়েও নাকি কে বা কারা ফেসবুকে আপনার নাম করে চাঁদা দাবি করছে?


আমি বিস্মিত, হতবাক। করোনায় সবাই যখন সংকট সময় পার করছে, তখন একটা গ্রুপ ফেসবুকে আমার নামে চাঁদাবাজি করছে! পরিচিত কয়েকজন বলার পর টের পাই। নিন্দা জানানো ছাড়া আর কীই–বা করতে পারি। আমার কোনো ফেসবুক পেজ নেই, একটিমাত্র আইডি আছে, যেখানে আমার পরিবার ও খুব কাছের কয়েকজন বন্ধু হিসেবে যুক্ত আছেন। সর্বসাকল্যে ৫০ জনের মতো হবে। ফেসবুক আইডি থেকে আমি সবার অ্যাকটিভিটি দেখি, তবে আমার নিজে কিছু পোস্ট করি না। আমার ২৫-৩০টি আইডি হ্যাকড হয়েছে! যত কঠিন পাসওয়ার্ডই দিই না কেন, কোনো না কোনোভাবে হ্যাকাররা হ্যাক করেছে। সব প্রমাণ দিয়েও নিজের আইডি ফেরত পাই না। অথচ আমার নামে কেউ ভুয়া আইডি চালাচ্ছে! এ ধরনের ফাজলামির কোনো অর্থ আছে? এখন তো ফেসবুকের প্রতি আমার কোনো আস্থা নেই।

Post a Comment

0 Comments